পা বাইরের দিকে বেঁকে থাকা (Genu Valgum)

Dr. Tariqul Alam Noman

শিশুর বয়স ২ বছর পার হলে স্বাভাবিক নিয়মেই সোজা পা একটু একটু করে বাইরের দিকে বাঁকতে থাকে। ৩-৪ বছর বয়সে পায়ের বাইরের দিকের বক্রতা ৮-১০ ডিগ্রীতে পৌছে। এটাই স্বাভাবিক নিয়মে পা বাইরের দিকে বক্রতার সর্বোচ্চ পরিমাণ যা পরবর্তীতে ধীরে ধীরে কমতে থাকে। ৭ বছর বয়সে পায়ের বাইরের দিকে বক্রতার পরিমাণ দাঁড়ায় ৫-৭ ডিগ্রী যা পরবর্তী বয়সেও বজায় থাকে। একে বাইরের দিকে পায়ের স্বাভাবিক বক্রতা (Genu Valgum বা Physiologic Knock Knee) বলে।

উল্লেখিত পরিমাণের চেয়ে পা যদি বাইরের দিকে বেশি পরিমাণে বেকে থাকে তাহলে তাকে পায়ের বাইরের দিকে বেকে থাকা (Knock Knee) রোগ হিসেবে গণ্য করা হয়।

শিশুর পা বাইরের দিকে বেঁকে থাকার কারণ সমূহঃ

  • Physiologic Knock Knee – ফিজিওলজিক নক নি
  • রিকেট্স
  • পায়ের হাড়ের উপরের দিকে ভাঙ্গাঁর পরবর্তী জটিলতা (Cozen Fracture)
  • আঘাত / সংক্রমন জনিত কারণে হাটুর ২ পাশের Growth Plate ক্ষতিগ্রস্থ হলে
  • সিওডোএকোন্ড্রপ্লাসিয়া
  • মিউকোপলিস্যাকারাইডোসিস
  • একাধিক বংশগত হাড়েরর টিউমার (Multiple Hereditary Exostosis).

পা বাইরের দিকে বেঁকে যাওয়া রোগীদের শারীরিক উপসর্গসমূহঃ

  • কিছু ক্ষেত্রে উপসর্গহীন থাকে
  • পা বাইরের দিকে ঘুরে থাকতে পারে (Out Toed Gait)
  • হাঁটার সময় হাঁটু একটা অন্যটার সাথে ঘষা লাগতে পারে
  • পায়ের পাতা সমতল (Flat) থাকে
  • হাঁটু ও পায়ের পাতায় ব্যথা হয়

পা বাইরের দিকে বক্রতার পদ্ধতি সমূহঃ

  • সরাসরি শিশুর শরীরে
  • এক্সরে পরীক্ষার মাধ্যমে

বাইরের দিকে বেঁকে থাকা পায়ের চিকিৎসাঃ

অর্থোসিসঃ

  • খুব একটা কার্যকরী নয়। তাই পা বাইরের দিকে বেঁকে যাওয়া রোগের চিকিৎসায় ব্রেস / অর্থোসিসের ব্যবহার বেশী হয় না।

অপারেশনের মাধ্যমে চিকিৎসাঃ

  • অস্থায়ী / স্থায়ী ইপিফাইসিওডেসিস
  • টিবিয়ার উপরের দিকে অথবা ফিমারের নীচের দিকে অথবা উভয় স্থানে সংশোধনমূলক অষ্টিওটমি
  • বিদ্যমান কারণসমূহের সুচিকিৎসা করতে হবে (যদি থাকে)

আমাদের আরও জানা থাকা উচিৎঃ

সময়মত সুচিকিৎসা করতে পারলে পায়ের বাইরের দিকে বক্রতা বা হাঁটু কড়া রোগ ভালো করা সম্ভব। ভালো ফলাফলের জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ মোতাবেক নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ফলোআপ করানো উচিৎ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *